Breaking News

ভবিষ্যতে কি ধরনের সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে ছেলে-মেয়ের সমবয়সে বিবাহ হলে? জেনে নিন বিস্তারিত!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-আগেকার যুগে যখন বিয়ে হতো তখন মেয়ের বয়স কম থাকতো এবং ছেলের বয়স বেশি থাকত ।এমনটা বলা যেতেই পারে যে স্ত্রীর তুলনায় স্বামীর বয়স প্রায় দ্বিগুন এর কাছাকাছি হতো ।এই ঘটনা আগেকার যুগের স্বাভাবিক হলেও সময়ের সাথে সাথে ক্রমশ পাল্টেছে মানসিকতা ।তার পাশাপাশি পাল্টেছে সমস্ত কিছু ধরন ।তার প্রভাব পড়েছে বিয়েতেও।

বর্তমানে এখন সমবয়সী ছেলে মেয়েরা বিয়ে করার প্রবণতা অত্যধিক মাত্রায় বেশি পরিলক্ষিত হচ্ছে। কিন্তু বিয়ের কয়েক মাস যেতে না যেতেই তাদের মধ্যে আবার দেখা যাচ্ছে বিচ্ছেদের সমস্যা ।তাহলে কি সমবয়সী বিয়ে করার জন্যই এই সমস্যা দেখা যাচ্ছে ?অবশ্যই তাই ।

বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন যে সমবয়সী ছেলে এবং মেয়ে একসাথে বিয়ে করলে একাধিক সমস্যা দেখা যেতে পারে তার কিছু উদাহরণ আমরা তুলে ধরলাম আজকের এই প্রতিবেদনে।যদি কোন কারনে মেয়ের বয়স বেশি হয় ছেলের তুলনায় তাহলে সেই পুরুষ সে মহিলার কাছে ভাতৃ সম হয়ে ওঠে । শারীরিক দিক থেকে বা মানসিক দিক থেকে ।

তার পাশাপাশি যদি উল্টোটা হয় অর্থাৎ পুরুষের বয়স যদি বেশি হয় সে ক্ষেত্রে চলে তা দাদাগিরি । সংসারের যাবতীয় সিদ্ধান্তে তার অধিকার থাকে সব থেকে বেশি । যার ফলে মনোমালিন্য শুরু হয় ।কিন্তু যদি সমবয়সী ছেলে মেয়েরা বিয়ে করে তাহলে প্রাথমিক দৃষ্টিতে তাদের মানসিকতা মিল থাকে প্রচন্ড পরিমানে ।।বয়স বাড়ার সাথে সাথে কমতে থাকে সেই সমস্ত বিষয়ের প্রবণতা ।

এর পাশাপাশি সমবয়সী ছেলে মেয়েরা যদি একে অপরকে বিয়ে করে তাহলে ৪০ থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে এক চরম সমস্যা দেখা যায় । কারণ সেই সময় নারীদের মানসিক পরিবর্তন ঘটে । সন্তান ধারণ করার পর থেকে একাধিক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায় ।ঠিক একই বয়সে পুরুষ তখন উজ্জ্বল তারুণ্য । যার ফলে স্ত্রীর মনে হয় যে তার স্বামীকে দেওয়ার মতন কিছুই নেই তার কাছে ।

অপরদিকে নিরলস জীবন কাটে শুরু করে সেই সমস্ত পুরুষের ।।যার ফলে মানসিক অশান্তি পারিবারিক অশান্তি এবং ডিভোর্সের ঘটনা লক্ষ্য করা যায় ।সমীক্ষা বলছে যে পাত্রীর চেয়ে পাত্রের বয়স কমপক্ষে ৫ বছর এবং বেশি হলে ৮ বছরের মধ্যে থাকা উচিত। ব্যতিক্রম ঘটনা থাকতেই পারে, কিন্তু সেটা আলোচনার মধ্যে আসতে পারে না।

ব্যতিক্রম সবসময়ই ব্যতিক্রম। তাই কিছু সমবয়সী দম্পতিও হতে পারেন দারুণ সুখী। কারণ কিছুটা বয়স যেতে না যেতেই স্ত্রীদেরকে বার্ধক্য জনিত সমস্যা গ্রাস করতে থাকে অর্থাৎ বয়সের ছাপ বেশি মাত্রায় পরিলক্ষিত হয় তার শরীরে। কিন্তু অপরদিকে পুরুষ যখন টাট্টু ঘোড়া যার ফলে উদাসীনতা এবং একাকীত্বকে গ্রাস করে পুরুষদেরকে ।

About kolkata buzz24x7

Check Also

‘আরআরআর’, ‘কেজিএফ’-এর মতো ‘অর্থহীন’ ছবি দেখবেন না, শ্রোতাদের অনুরোধ করলেন জুবিন

নিজস্ব প্রতিবেদন:বর্তমানে বলিউড ইন্ডাস্ট্রি বিভিন্ন চলচ্চিত্রে থেকেও বেশি পরিমাণে মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছে দক্ষিণের …

Leave a Reply

Your email address will not be published.